যে ১০টি পদ্ধতি আপনাকে কাজে ফোকাস বৃদ্ধি করতে সাহায্য করবে


প্রতিটি কাজে সফলতা পেতে হলে কাজ সম্পন্ন করার সময় পূর্ন ফোকাস রাখতে হয়। তানাহলে কাজ সঠিকভাবে হয় না এবং সঠিক সময়ে কাজ সম্পন্ন হয় না। কিন্তু কীভাবে কাজে ফোকাস রাখা যায়?

কাজে ফোকাস ঠিক রাখতে হলে কয়েকটি বিষয় সবার মেনে চলা উচিত। বিভিন্ন মানুষ বিভিন্ন পদ্ধতিতে ফোকাস ঠিক রাখে। তবে সকল পদ্ধতির মধ্যে কিছু কমন বিষয় থাকে।

১. কাজের ক্ষেত্রে ভালো লাগাকে প্রধান্য দিনঃ

কাজের শুরুর ক্ষেত্রে অবশ্যই আপনার পছন্দ অপছন্দ বোঝার চেষ্টা করুন। যা করতে আপনার ভালো লাগে না তার পিছনে সময় ব্যয় করবেন না। যে কাজে ভালো লাগা না থাকে তা মানুষ বেশি দূর করতে পারে না। তার মধ্যে ফোকাস রাখা যায় না। তাই আপনার ভালো লাগে সেই কাজ গুলোই করুন।

অনেকের মনে প্রশ্ন আসতে পারে অনেক কাজ আমাদের করতে ভালো না লাগা সত্বেও করতে হয়। সেই সকল কাজে কীভাবে পরিপূর্নভাবে ফোকাস রাখব? হ্যা, আমাদের জীবনে অনেক সময়ই এমন কাজে যুক্ত হতে হয় যা আমাদের ভালো লাগে না। সেই কাজের ক্ষেত্রে ভালো লাগা তৈরি করতে হয়। অর্থাৎ সহজ হিসাব করতে ভালো লাগে এমন কাজ করুন অথবা কাজে ভালো লাগা তৈরি করে নিন। কারণ আপনি যেহেতু বুজতেই পারছেন কাজটি আপনাকে করতেই হবে এবং কোন ভাবেই অবহেলা বা বাদ দেয়া সম্ভব নয় সেহেতু অপছন্দ করে লাভ কি, পছন্দ করা শুরু করুন দেখবেন দ্রুত কাজটি শেষ হয়ে যাবে।

২. সময়কে সুন্দরভাবে বন্টন করুনঃ

আমাদের কাজে গভীরভাবে মনোযোগ রাখার জন্য সময়কে সুন্দরভাবে ব্যবহার অনেক জরুরী। সময়কে সুনির্দিষ্ট ভাবে ব্যবহার করতে হবে, না পারলে কাজ গুলো ঠিকভাবে হবে না এবং ফোকাস থাকবে না। প্রতিটি কাজের জন্য সময়কে সুনির্দিষ্টভাবে ভাগ করে ফেলুন। নির্দিষ্ট সময়েই নির্দিষ্ট কাজটি করতে হবে।

৩. কাজের স্থানকে গুছিয়ে রাখুনঃ

কাজে ফোকাস রাখার জন্য কাজের স্থান অনেক গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখে। তাই কাজের স্থানকে সর্বদা গুছিয়ে রাখুন। অগোছালো কাজের স্থান আপনার কাজ করার ক্ষেত্রে বিভিন্ন বাধা দিবে এবং সময় নষ্ট করবে যা আপনি নিজেও বুজতে পারবেন না। তাই কাজের স্থানকে গুছিয়ে রাখুন যাতে আপনার ফোকাস নষ্ট না হয়।

৪. কম্পিউটারকে সুন্দরভাবে রাখুনঃ

আপনি যদি কম্পিউটারে কাজ করেন তাহলে সেই কম্পিউটারই হতে পারে আপনার কাজের ফোকাস নষ্ট করার সবচেয়ে বড় কারণ। তাই আপনার কাজের সকল প্রয়োজনীয় উপাদান গুলো একটি ফোল্ডারে রাখুন যাতে প্রয়োজনের সময় না পেয়ে ফোকাস নষ্ট না হয়। সবসময় কম্পিউটারকে ভাইরাস মুক্ত বা ত্রুটিমুক্ত রাখার চেষ্টা করুন। কাজের সময় কম্পিউটারের ডিস্টার্ব যেকোন কাজে ফোকাস নষ্ট করার জন্য অন্যতম কারণ। সবসময় ডেস্কটপ এ কম ফাইল রাখার চেষ্টা করবেন, যখন আপনার চোখ শান্তি পাবে তখন আপনার মাথা দ্রুত কাজ করবে।

 

৫. মাইন্ডকে ট্রেইন করুনঃ

ফোকাস ঠিক রাখার জন্য মাইন্ডকে মাঝে মাঝে ট্রেইন করুন। মাঝে মাঝে ছোট ছোট বিভিন্ন কাজ পূর্ন মনোযোগের সাথে শুরু থেকে শেষ করুন। এটি আপনার মাইন্ডকে ট্রেইন করতে এবং ফোকাস রাখার একটি অভ্যাস তৈরি করতে সাহায্য করবে।

৬. টু-ডু লিস্ট তৈরি করুনঃ

যেকোন কাজ সফলভাবে সম্পন্ন করতে টু-ডু লিস্ট তৈরি করা সবার জন্য অনেক জরুরী। আপনার প্রতিদিনের কাজটি একটি টু-ডু লিস্টের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করুন। প্রতিটি কাজ সেই লিস্ট অনুযায়ী করুন। তাহলে আপনার কোন কাজ বাদ পড়বে না এবং সময়মত হবে। ফোকাস ঠিক থাকবে।

৭. অগ্রাধিকার ঠিক করুনঃ

প্রতিদিন আমাদের অনেক কাজ করতে হয়। অনেক গুলো কাজ করার পর কাজে ধীর গতি চলে আসে, আবার অনেক সময় অলসতাও চলে আসে। ফলে ফোকাসও নষ্ট হয়ে যায়। তাই আপনার সকল কাজের মধ্যমে কোন কাজগুলো বেশি অগ্রাধিকার সম্পন্ন তা ঠিক করতে হবে এবং সেই কাজগুলোকে আগে করতে হবে। তাই প্রথমে কাজের অগ্রাধিকার ঠিক করুন এবং অগ্রাধিকার ভিত্তিতে কাজ করুন। অগ্রাধিকার এর উপর নির্ভর করে আপনার টু-ডু লিস্ট তৈরি করুন।

৮. সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটকে শক্তভাবে নিয়ন্ত্রন করুনঃ

অনেক ক্ষেত্রে সোশ্যাল নেটয়ার্কিং সাইট গুলোকে বলা হয় সময় অপচয়ের মেশিন। তাই আপনাকে এই সাইটগুলো থেকে নিজেকে নিয়ন্ত্রন করতে হবে। কাজের মাঝে মাঝে সোশ্যাল সাইটগুলো ভিজিট করা আজ আমাদের একটি অভ্যাসে পরিনত হয়েছে। যার ফলে আমাদের সকল কাজে ফোকাস নষ্ট হচ্ছে। এই ফোকাস ঠিক রাখার জন্য সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটগুলোকে শক্তভাবে নিয়ন্ত্রন করতে হবে। আসলে এই বিষয় এ নিজেকেই নিজে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে।

৯. কাজকে ছোট ছোট অংশে ভাগ করুনঃ

কোন বড় কাজ করতে গেলে ফোকাস ঠিক রাখা কঠিন হয়ে পরে। তাই প্রতিটি কাজকে ছোট ছোট অংশে ভাগ করে ফেলুন। সেই ছোট ছোট অংশে কাজ গুলো সঠিকভাবে সম্পন্ন করুন। কোন একটি অংশ অসম্পূর্ন রেখে আরেকটি অংশে যাবেন না। সুন্দরভাবে প্রতিটি অংশ শেষ করলেই আপনার ফোকাস ঠিক থাকবে।

১০. কাজের মাঝে বিরতি দিনঃ

কাজের মাঝে মাঝে বিরতি কাজের মধ্যে পূর্ন উদ্যমে ফিরে আসতে সাহায্য করে। আপনার মধ্যে যে ক্লান্তি আসে তাও দূর করে। তাই কাজের মাঝে মাঝে বিরতি দিন।

কিছু আলাদা বিষয় ব্যাক্তি বিশেষে অনেক ক্ষেত্রে কাজ করে। যেমন – কারো কাজের মাঝে গান শুনলে কাজের গতি বৃদ্ধি পায়, কেউ হয়ত Motivational মিউজিক বা ভিডিও দেখে, কেউ হয়ত মুভি দেখে, কেউবা প্রতি মাসে একদিনের জন্য হলেও কথাও বেড়াতে যান এবং নিজের কাজের গতি ফিরে আনেন। উপরের ১০টি কমন বিষয় এর সাথেও আপনার নিজের উদ্যোগ অনেক বেশি জরুরী, কারণ কাজ চলাকালীন অবস্থায় ফোকাস ঠিক রাখার বিষয় এ আমি লিখেছি কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে কাজে বিরতি নিয়ে কোন Activity করার মাধ্যমেও আপনার ফোকাস বা গতি বাড়ানো সম্ভব এবং যা ব্যাক্তি বিশেষে বিভিন্ন রকম হয়ে থাকে এবং তা আপনাকেই খুঁজে বের করতে হবে।

 

ASADUZZAMAN HRIDOY

-CEO at DHAKATECH.NET

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

\